WordPress কি? ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারের ৮টি সুবিধা !!

 

আসসালামু আলাইকুম

লিখব বিডি আরো একটি পোস্টে আপনাকে স্বাগতম আজকের পোষ্টের বিষয়বস্তু হলো জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম ওয়ার্ডপ্রেসের সম্পর্কে । ওয়ার্ডপ্রেস কি এবং কেন ব্যবহার করা হয় এবং এর সুবিধা এবং অসুবিধা সম্পর্কে আজকে এই পোস্টে আমরা আলোচনা করবো আর পড়ার সুবিধা তাহলে দেরি না করে চলুন শুরু করা যাক:

আজকের পোস্টের বিষয়বস্তু হল:

  • থিম এবং টেমপ্লেট
  • প্লাগইন
  • এসইও-বান্ধব
  • ইনস্টলেশন সহজ
  • ওয়েবসাইট ডিজাইন
  • একক ক্লিকের মাধ্যমে আপডেট
  • একাধিক ব্যবহারকারী
  • স্ব-হোস্ট


ওয়ার্ডপ্রেস হল একটি বিনামূল্যে ওপেনসোর্স কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিএমএস) ওয়েবসাইট বা ব্লগ তৈরি করা আরো সহজ করে তোলে। এটি একটি সুপরিচিত সহ স্টেট কোম্পানি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম যা ২০০৩ সালে আমেরিকা ডেভলপার লিটল দ্বারা তৈরি হয়েছিল। 

ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে কোম্পানির বিভিন্ন ওয়েবসাইট, পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট এবং ই-কমার্স এর মত সাইট গুলো অত্যন্ত কম সময়ে এবং কোডের ঝামেলা ছাড়া তৈরি করা সম্ভব।

আরও পড়ুন:এন্ড্রয়েড ফোনের ৫ টি সমস্যা এবং তা সমাধনের উপায় 

ওয়ার্ডপ্রেস কি

ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে সাধারণত বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করা হয়। ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে হাজার হাজার বিনামূল্যে থিম এবং প্লাগিন দেওয়া আছে যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে মনের মতো করে তৈরি করতে পারেন। এছাড়াও এর ব্যবহারকারী বান্ধব অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ওয়ার্ডপ্রেসকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে।

তাই আজকের পোস্টে ওয়ার্ডপ্রেসের আর্থিক সুবিধা নিচে দেওয়া হল যার মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনারা কি কি সুবিধা পাবেন।

থিম এবং টেমপ্লেট

ওয়ার্ডপ্রেস তাদের ব্যবহারকারীর জন্য অনেক টেমপ্লেট দিয়ে থাকে যার মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা তাদের ওয়েবসাইট তৈরি করতে অনেকটা সহজ মনে করে। ওয়েবসাইট তৈরি করার সময় ব্যবহারকারী ওয়েবসাইট এর শিরোনাম, ফুটার, ফন্টের আকার এবং বিভিন্ন থিমের অংশগুলো পরিবর্তন করতে পারে। ফলে তাদের কোন থিম বা টেমপ্লেট টাকা দিয়ে ক্রয় করতে হয়না বরং তা ওয়ার্ডপ্রেস তাদের বিনামূল্যে দিয়ে থাকে।

এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের টেমপ্লেট বিনামূল্যে দেওয়ার মাধ্যমে যার যে থিম গুলো প্রয়োজন সেটি ব্যবহার করতে পারে। যেমন একজন ফ্রিল্যান্সারের পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট দরকার আবার একজন ব্যবসায়ীর ই-কমার্স সাইট তৈরি করার জন্য অন্য রকমের টেমপ্লেট দরকার। এরকম হাজার হাজার টেমপ্লেট ওয়াডপ্রেস বিনামূল্যে দিয়ে থাকে।

প্লাগইন

এখন প্রশ্ন হতে পারে প্লাগিন কি? প্লাগিন হলো একটি সফটওয়্যার এর অংশ যার মাধ্যমে প্রোগ্রামের পাশাপাশি এটি ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করা যায়। এটির মাধ্যমে আপনার থিমের বিভিন্ন অংশকে আরো বেশি সুন্দর করে তোলা যায় যা আপনার থিমের মধ্যে আগে সংযুক্ত ছিল না।

বর্তমানে অনেকগুলো পেইড প্লাগিন থাকলেও অনেকগুলো প্লাগিন ওয়ার্ডপ্রেস বিনামূল্যে দিয়ে থাকে যাতে করে তাদের ব্যবহারকারী আরো ওয়েবসাইটকে আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে।

এসইও-বান্ধব

ওয়ার্ডপ্রেসে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটকে দ্রুত সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে সাহায্য করবে। যার মাধ্যমে আপনার পোস্টগুলো সহজে গুগলে ইনডেক্স হবে এবং পোস্টগুলো আপনার ব্যবহারকারীর অনুযায়ী দ্রুত পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে। এতে আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়বে এবং আপনি আপনার সাইটকে আরো গুগলে রেংক করাতে সুবিধা হবে।

ফলে এসইও-বান্ধব পোস্টগুলো আপনার কষ্ট করে আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে হবে না। বরং তাদের অনেকগুলো ওয়েবসাইট অফ ডিভিশন রয়েছে যেটি আপনি বিনামূল্যে ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার সাইটকে ও আপনি গুগলের রেংক করাতে পারেন।


আরও পড়ুন:কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রান্ত হলে তা প্রতিরোধ করবেন।

ইনস্টলেশন সহজ

ওয়ার্ডপ্রেসে অভিজ্ঞ এবং অনভিজ্ঞ এবং পেশাদার ওয়েব ডিজাইনের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে যার মাধ্যমে একজন অনভিজ্ঞ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারীও এক ক্লিকে ইনস্টলেশন করতে পারে যার জন্য তার কোনো কোডিং এর প্রয়োজন হয় না।

ফলে এটি একজন ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এর জন্য কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই ওয়ার্ডপ্রেসে তার ওয়েবসাইটটিকে ইন্সটল করতে পারে।

ওয়েবসাইট ডিজাইন

প্রতিবছরই অনেক মানুষ ইন্টারনেটের জন্য মোবাইল ডিভাইস ব্যবহার করে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। ফলে তাদের ডিভাইসটি ওয়ার্ডপ্রেস এর সাথে সংযুক্ত বা সাপোর্ট ডিজাইন করা প্রয়োজন। যেমন আপনি অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহার করেন তাই আপনার ওয়েবসাইটটি এন্ড্রয়েড ফোনের ভার্সনে ব্যবহার করতে হয় তেমনি অনেকজন আইফোন ব্যবহার করে। 

যদি এই একই ওয়েবসাইট আইফোন ব্যবহার করার মাধ্যমে ওয়েবসাইটটি ভেঙে যায় বা ডিজাইন নষ্ট হয়ে যায় তাহলে ওয়েবসাইট ভিজিটর হারাবে এবং দিনে দিনে রেঙ্ক হারাবে। তাই ওয়েবসাইটটি সকল ডিভাইসের জন্য যাতে ব্যবহার করা যায় সেটি ওয়ার্ডপ্রেস নিশ্চিত করে। 

একক ক্লিকের মাধ্যমে আপডেট

ওয়ার্ডপ্রেসের আপডেটগুলো একক মাউস লীগের মতোই সহজ। এটি আপডেট দেওয়ার জন্য মালিকদের কোন ঝামেলা পোহাতে হয় না বরং একটি সিস্টেম রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি করার সাথে সাথেই ওয়ার্ডপ্রেস আপডেট হওয়া শুরু করবে।

একাধিক ব্যবহারকারী

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটটি কে বাড়ানোর চিন্তা ভাবনা করেন তাহলে ওয়ার্ডপ্রেসে আপনার ওয়েবসাইটটিকে রান করা অবশ্যই আপনার জন্য বুদ্ধিমানের কাজ হয়ে দাঁড়াবে কারণ এখানে আপনার অনেকগুলো ব্যবহারকারীকে আপনি আপনার ওয়েবসাইটটি কে ব্যবহার তাদের দিতে পারবেন।

যেমন আপনার ওয়ার্ডপ্রেস এর মালিক ম্যানেজার এবং সম্পাদকসহ বিভিন্ন স্তরের এক্সেস রয়েছে যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটটি  বিপুল সংখ্যক লোককে নিয়ে কাজ করাতে । ফলে এটি একটি ওয়ার্ডপ্রেস এর একটি সুন্দর একটি ফিউচার যার মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন মানুষকে অ্যাক্সেস দিতে পারবেন ফলে আপনার কাজগুলো আরো সহজ হয়ে উঠবে।

স্ব-হোস্ট

ওয়ার্ডপ্রেসের সবচেয়ে বেশি সুবিধা হল এটি আপনি শুরুতে ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন এবং এটি একটি স্ব-হোস্ট কম্পানি।

আপনি যেকোন ওয়েবসাইট এর হোস্টেলের সাথে সহজে কানেক্ট করতে পারবেন যার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটটি আরো দ্রুত এবং কর্মক্ষম করে তুলতে সাহায্য করবে।

আরও পড়ুন:এন্ড্রয়েড ফোনের সেরা ৫টি অ্যাপ্লিকেশন 

পোস্টটি ভাল লাগলে আপনি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন এবং এরকম আরো অনেকগুলো পোস্ট পড়তে লিখব বিডির সাথে থাকুন।

ধন্যবাদ

Leave a Comment